২১শে এপ্রিল, ২০১৯ ইং, ৮ই বৈশাখ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৬ই শাবান, ১৪৪০ হিজরী

প্রধানমন্ত্রীর সিদ্ধান্তে খুশি রোহিঙ্গারা

Monday,20 August 2018

teknafbarta24.com

ডেস্ক সংবাদ : পৃথিবীর সর্ববৃহৎ রোহিংগা শিবিরে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে কুরবানির মাংস বিতরনের সংবাদে খুশি হয়েছেন লাখো রোহিংগা পরিবার। গত বছরের পবিত্র ঈদ উল আযহার আগেই মায়ানমারের সেনা আর মগ কর্তৃক নির্যাতনের হাত থেকে বাংলাদেশে পালিয়ে আসেন ১০ লাখেরও অধিক রোহিংগা পরিবার।

জানা যায়, কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফের ৩০টি আশ্রয়শিবিরের রোহিঙ্গাদের জন্য ১০ হাজার কোরবানির পশু কেনা হচ্ছে।

জেলা প্রশাসন জানিয়েছে, পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষে ঈদের দিন প্রতিটা রোহিঙ্গা পরিবারকে আন্তত পাঁচ কেজি করে মাংস পৌঁছে দেওয়ার জন্য এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

কোরবানির মাংস সুষ্ঠুভাবে বিতরণ ও পশু কেনার জন্য জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেনকে প্রধান করে একটি সমন্বয় কমিটি গঠন করা হয়েছে।

রোহিংগা যুবক কামাল আক্তার বলেন, আমরা নিজ ভূমির সব ছেড়ে পালিয়ে এসে এদেশে আশ্রয় নিয়েছি। চিন্তিত ছিলাম পরিবারের ছোট ছেলে ও মেয়েদের কুরবানির মাংস খাওয়াতে পারব কিনা। তবে প্রধানমন্ত্রীর এমন সিদ্ধান্তে সকলে খুশি হয়েছেন বলে জানান তিনি।

জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে ১ লাখ ৯৫ হাজার পরিবারের ১১ লাখের বেশি রোহিঙ্গাদের জন্য ১০ হাজার পশু কেনা হচ্ছে। এর মধ্যে ৯০ শতাংশ গুরু। পাশাপাশি রোহিঙ্গাদের কারণে ক্ষতিগ্রস্ত স্থানীয়দের জন্যও কেনা হবে ৬০০ থেকে ৭০০টি পশু।

প্রতিটি পরিবারে অন্তত পাঁচ কেজি করে মাংস পৌঁছানোর চেষ্টা চলছে। রোহিঙ্গারা যাতে ঈদের আনন্দ থেকে বঞ্চিত না হয় তাই এই উদ্যোগ।

জেলা প্রশাসক সূত্রে জানা গেছে, প্রধানমন্ত্রীর অনুদানের টাকায় ইতিমধ্যে কয়েক‘শ পশু কেনা হয়েছে। ঈদের আগের দিন পর্যন্ত অবশিষ্ট পশুগুলো কেনা হবে। এই কাজে রোহিঙ্গা শিবিরে কর্মরত দেশি-বিদেশি দাতা সংস্থা ও জাতিসংঘের বিভিন্ন সংস্থা সহযোগিতা করছে। কোরবানির মাংস বিতরণ হবে জেলা প্রশাসনের তত্ত্বাবধানে। এছাড়া মাংস বন্টনের জন্য প্রতিটি রোহিঙ্গাশিবিরে ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে পৃথক কমিটি হয়েছে।

গত বছরের ২৫ আগস্টের পর মিয়ানমারের ৭ লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা রাখাইন প্রদেশ থেকে পালিয়ে আসে। জাতিংসঘের তথ্য অনুযায়ী, উখিয়া ও টেকনাফের আশ্রয়শিবিরগুলোতে নিবন্ধিত রোহিঙ্গার সংখ্যা ১১ লাখ ১৮ হাজার ৫৫৭ জন। আর আগে ঈদুল ফিতরেও প্রধানমন্ত্রী রোহিঙ্গা ও স্থানীয় ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য ঈদ উপহার হিসেবে ত্রাণসামগ্রী পাঠিয়েছিলেন।

টেকনাফ বার্তা ২৪ এ প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য লিখুন

মন্তব্য