১৯শে আগস্ট, ২০১৯ ইং, ৪ঠা ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৮ই জিলহজ্জ, ১৪৪০ হিজরী

নৌকায় ভোট চাইলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

Friday,21 December 2018

teknafbarta24.com

নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন প্রদান নিয়ে বিএনপির বিরুদ্ধে বাণিজ্যের অভিযোগ তুলে আওয়ামী লীগ সভাপতি এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, তারা (বিএনপি) এখন নির্বাচনে হয় কারচুপি, না হয় বানচালের ষড়যন্ত্র করছে।

তিনি বলেন, তারা (বিএনপি) এক একটি আসনে ৩ থেকে ৪ জন প্রার্থীকে মনোনয়ন দিয়েছে এবং এসব আসন তারা অকশনে দিয়ে দিয়েছে। এর মানে হচ্ছে যে যতো বেশি টাকা দেবে সে মনোনয়ন পাবে।

শেখ হাসিনা বলেন, বিএনপি নির্বাচনে অবৈধ টাকা ওড়াচ্ছে, এটাই তাদের চরিত্র। “দেশবাসীকে বলবো তারা জনগণের অর্থ আত্মসাৎ করেছে, তাই জনগণের অর্থ জনগণের কাছে পৌঁছাক, তাদের অর্থ নেন, আর নৌকা মার্কায় ভোট দেন,” যোগ করেন তিনি।

গতকাল (২০ ডিসেম্বর) বিকেলে রাজধানীর ধানমন্ডির সুধাসদনের বাসভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে শেখ হাসিনা রাজশাহী, নড়াইল, জয়পুরহাট ও গাইবান্ধার নির্বাচনী সমাবেশে এ কথা বলেন।

তিনি বিএনপির ষড়যন্ত্র সম্পর্কে জনগণকে সচেতন করে দিয়ে বলেন, “আমি আরেকটি কথা শুনতে পাচ্ছি নির্বাচনের সময় তারা মুজিব কোর্ট পরে, নৌকার ব্যাজ লাগিয়ে ভোটকেন্দ্রে গিয়ে গোলমাল করবে, ভোট কারচুপি করবে এবং আওয়ামী লীগের ওপর দোষ চাপাবে।”

কারণ, হিসেবে তিনি যুক্তি তুলে ধরেন, “তারা (বিএনপি) একেক জন অগাধ সম্পত্তির মালিক। মানি লন্ডারিং, অস্ত্র চোরাকারবারী, এতিমের অর্থ আত্মসাৎ- বিভিন্ন পন্থায় তারা এতো টাকা কামাই করেছে, বিএনপি-জামায়াত জোটের টাকার কোন অভাব নেই।”

তিনি বলেন, “একটা জিনিস লক্ষ্য করবেন নির্বাচনের স্বাভাবিক প্রচার-প্রচারণায় তারা নেই। কারণ, তারা এখন চক্রান্তে ব্যস্ত, ষড়যন্ত্রে ব্যস্ত। নেতারা প্রতিদিন নির্বাচন কমিশনে নালিশ করে, অন্যদিকে তারা নির্বাচন বানচালের চক্রান্ত করে।”

“আমি আরেকটি জিনিস শুনলাম তারা ভুয়া ব্যালট পেপার ছাপাচ্ছে। তারা এভাবে দুর্নীতি, চক্রান্ত করার চেষ্টা করছে। তাদের এই চক্রান্ত থেকে জনগণের ভোটের অধিকারকে রক্ষা করতে হবে,” যোগ করেন প্রধানমন্ত্রী।

শেখ হাসিনা বলেন, “তারা একটা জিনিসই পারে- প্রতিপক্ষের ওপর দোষ চাপাতে। ইতোমধ্যে আমাদের অনেকগুলো নির্বাচনী অফিস তারা আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দিয়েছে। আমাদের কর্মীদেরকেও হত্যা করেছে।”

নেতা-কর্মী ও দেশবাসীর উদ্দেশ্যে বঙ্গবন্ধু কন্যা বলেন, “যারা অর্থশালী তাদের অর্থ নেন আর নৌকা মার্কায় ভোট দেন। কেননা, নৌকা মার্কায় ভোট না দিলে দেশে শান্তি থাকবে না, গণতন্ত্র থাকবে না, দেশ উন্নতও হবে না। আর কোথায় চক্রান্ত হচ্ছে এটা খুঁজে বের করতে হবে। আমার কাছে তাদের চক্রান্তের এ রকম অনেক তথ্য রয়েছে।”

বাসস

টেকনাফ বার্তা ২৪ এ প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য লিখুন

মন্তব্য