১৭ই আগস্ট, ২০১৯ ইং, ২রা ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৬ই জিলহজ্জ, ১৪৪০ হিজরী

টেকনাফে জাতির পিতার জন্ম বার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উদযাপিত

Sunday,17 March 2019

teknafbarta24.com

নুরুল হোসাইন : কক্সবাজারের টেকনাফে যথাযোগ্য মর্যাদায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৯ তম জন্ম বার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উদযাপিত হয়েছে। এ উপলক্ষে রোববার (১৭ই মার্চ) দিনব্যাপী উপজেলা প্রশাসন বিভিন্ন নানা কর্মসূচির আয়োজন করে।

কর্মসূচির মধ্যে ছিল সকালে আনন্দ শোভাযাত্রা, পুষ্পস্তবক অর্পণ, শিশু সমাবেশ, আলোচনা সভা, ৭ই মার্চের ভাষণ, বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক চিত্রাঙ্কন ও রচনা প্রতিযোগিতার বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ, মসজিদ ও ধর্মীয় উপাসনালয়ে মিলাদ ও প্রার্থনা অনুষ্ঠান, চলচ্চিত্র ও আলোকচিত্র প্রদর্শনী, সরকারি শিশু পরিবারের শিশুদের মাঝে উন্নতমানের খাবার পরিবেশন ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান যথাযথ ভাবে সম্পন্ন হয়েছে।

কর্মসূচির শুরুতে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে সকাল সাঁড়ে ৮ টায় উপজেলা শহীদ মিনার চত্বরে একটি বর্ণাঢ্য আনন্দ শোভাযাত্রা বের হয়। এরপর শোভাযাত্রাটি বাসষ্টেশন প্রদক্ষিণ হয়ে উপজেলা শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে গিয়ে শেষ হয়।শোভাযাত্রার নেতৃত্ব দেন টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. রবিউল হাসান।

উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে উপজেলা হল মিলনায়তনে সমবেত শিশুদের উদ্দেশ্যে প্রদর্শিত হয় মুক্তিযুদ্ধ ভিত্তিক চলচ্চিত্র। এরপর শুরু হয় আলোচনা সভা। এতে উপজেলা একাডেমি সুপারভাইজার নুরুল আবছারের পরিচালনায় প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসাস মো. রবিউল হাসান।

সভায় বক্তব্য রাখেন উপজেলা সহকারি কমিশনার(ভুমি) প্রণয় চাকমা, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার আনন্দময় ভৌমিক, কৃষি কর্মকর্তা মো. শহিদুল ইসলাম, মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা আলমগীর কবির চৌধুরী, সমাজসেবা অফিসার সিরাজ উদ্দীন, টেকনাফ সরকারি কলেজের সহকারি অধ্যাপক সন্তোষ কুমার শীল।এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন উপজেলার বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা, সাংবাদিক, সরকারি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান, সামাজিক ও রাজনৈতিক সংগঠনের নেতাকর্মী এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-শিক্ষার্থীবৃন্দ।

প্রধান অতিথি রবিউল হাসান বলেন, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ, চিন্তা ও চেতনা ধারণ করতে পারলেই মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় সোনার বাংলাদেশ গড়া সম্ভব।

তিনি আরো বলেন, ভবিষ্যতে দেশ গড়ার নেতৃত্ব দিতে হবে আজকের শিশুদেরই। তাই শিশুরা যেন সৃজনশীল মুক্তমনের মানুষ হিসেবে গড়ে ওঠে- বঙ্গবন্ধু সব সময়ই সেটা চাইতেন। তাই জাতির জনকের জন্ম বার্ষিকীকে শিশু দিবস হিসেবে পালন খুবই তাৎপর্যপূর্ণ। এই দিনে জাতির জনকের প্রতি শ্রদ্ধা জানানোর সঙ্গে সঙ্গে সেই মহান নেতার জীবন ও আদর্শ অনুসরণে এ দেশের শিশুরা যথাযোগ্য সুনাগরিক হিসেবে গড়ে উঠবে।

বাংলাদেশকে সত্যিকারের সোনার বাংলা গড়ে তোলার লক্ষে তার দেশপ্রেম ও আদর্শকে মনেপ্রাণে ধারণ ও লালন করতে শিশুসহ সকলের প্রতি আহবান জানান তিনি।

আলোচনা শেষে উপজেলা প্রশাসনের আয়োজিত বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক বিভিন্ন প্রতিযোগিতাদের কে শীর্ষক কুইজ বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন অতিথিবৃন্দ।

টেকনাফ বার্তা ২৪ এ প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য লিখুন

মন্তব্য