১৬ই জুলাই, ২০১৯ ইং, ১লা শ্রাবণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৩ই জিলক্বদ, ১৪৪০ হিজরী

ধর্ষণের কারণে জন্ম নেয়া শিশুদের ভবিষ্যৎ কি?

Thursday,02 May 2019

teknafbarta24.com

ইরাকের উত্তরপশ্চিমাঞ্চলের পাহাড়ি এলাকায় বসবাসকারী একটি সম্প্রদায় ইয়াজিদি৷ ২০১৪ সালে তাঁদের উপর হামলা চালায় তথাকথিত জঙ্গি সংগঠন ইসলামিক স্টেট বা আইএস৷

ইসলাম ধর্মের সঙ্গে ইয়াজিদিদের অনুসরণ করা ধর্মীয় বিশ্বাসের পার্থক্য থাকার অভিযোগে আইএস ইয়াজিদি সম্প্রদায়কে সমূলে উৎপাটন করতে চেয়েছিল৷ তাই তারা ইয়াজিদি পুরুষদের হত্যা করেছে, আর কিশোর ও তরুণদের জোর করে আইএস যোদ্ধা হিসেবে কাজ করতে বাধ্য করেছে৷ এছাড়া নারী ও তরুণীদের যৌন দাসী হিসেবে ব্যবহার করেছে আইএস জঙ্গিরা৷

এসব কারণে ইয়াজিদি নারীদের গর্ভে যেসব শিশু জন্ম নিয়েছে তাদের সমাজে গ্রহণ করা হবে না, বলে শনিবার জানিয়েছে ইয়াজিদিদের ‘সুপ্রিম স্পিরিচুয়াল কাউন্সিল’৷

এই সিদ্ধান্তের কারণে ধর্ষণের কারণে জন্ম নেয়া শিশুদের ভবিষ্যৎ নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে৷

জানা গেছে, যৌন দাসী হিসেবে কাজ করতে বাধ্য হওয়া প্রায় তিন হাজার ইয়াজিদি নারী বর্তমানে সন্তানসহ বিভিন্ন শরণার্থী শিবিরে বসবাস করছে৷ এদের মধ্যে একটি অংশ জার্মানিসহ ইউরোপের অন্যান্য দেশে চলে গেছেন৷ এছাড়া কেউ কেউ সন্তানদের ছেড়ে ইয়াজিদি সমাজে ফিরে গেছেন৷ বাকি যাঁরা এখনো শিবিরে আছেন, তাঁরা কী করবেন, তা নিয়ে আলোচনা হচ্ছে৷

নোবেলজয়ী ইয়াজিদি অ্যাক্টিভিস্ট নাদিয়া মুরাদ বলছেন, ধর্ষণের শিকার মায়েরা তাঁদের সন্তানদের নিয়ে ফিরবেন কিনা, সেই সিদ্ধান্ত শুধুমাত্র তাঁদের পরিবারই নিতে পারেন৷ এক্ষেত্রে অন্যদের সিদ্ধান্ত দেয়ার কোনো অধিকার নেই৷

আরেক অ্যাক্টিভিস্ট ও ইরাকের সাবেক সাংসদ আমিনা সৈয়দ ডয়চে ভেলেকে বলেন, শিশুদের ভবিষ্যৎ নিয়ে তাদের পরিবারেরই সিদ্ধান্ত নেয়া উচিত৷ ‘‘একজন মা হিসেবে আমি অন্য নারীরা কী অনুভব করছেন, তা বুঝতে পারি,” ডয়চে ভেলেকে বলেন তিনি৷

গোত্রের প্রতিক্রিয়াও তিনি অনুভব করতে পারেন জানিয়ে আমিনা সৈয়দ বলেন, ‘‘কিন্তু তাঁরা তো (ধর্ষণের শিকার নারী) ভুক্তভোগী৷ আমরা যদি তাঁদের জন্য সব দরজা বন্ধ করে দেই, তাহলে তাঁদের দ্বিতীয়বারের মতো শাস্তি দেয়া হবে৷”

‘ইয়াজদা’র উপ-পরিচালক আহমেদ বুর্জুস একটি প্রস্তাব দিয়েছেন৷ তাঁর মতে, সবচেয়ে ভালো হয় যদি এই নারীদের ইরাকের বাইরে অন্য কোনো দেশে পুনর্বাসন করা যায় এবং তাঁদের সম্মানের জীবন দেয়া যায়৷

টম আলিনসন/জেডএইচ

টেকনাফ বার্তা ২৪ এ প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য লিখুন

মন্তব্য